পর্যটকদের স্বস্তি দিতে বায়ু পরিশোধক যন্ত্র বসানো হয়েছে তাজমহলে

ইউনেস্কো স্বীকৃত পৃথিবীর সপ্তম আশ্চর্যের অন্যতম তাজমহল নির্মাণ করেন মুঘল সম্রাট শাহজাহান। প্রতি বছর বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের ৮০ লাখ মানুষ এটি দেখতে ভিড় জমান। এর চেয়ে বেশি পর্যটকের সমাগম ভারতের আর কোথাও হয় না। পর্যটকদের একটু স্বস্তি দিতেই আগ্রা জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে তাজমহলের মূল ফটকে বসানো হয়েছে দুটি ভ্রাম্যমাণ বায়ু পরিশোধক যন্ত্র।

0
60

ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লির বায়ুদূষণ বেশ কিছুদিন ধরে অসহনীয় পর্যায়ে। দিল্লির আশেপাশের এলাকাতেও ধোঁয়ায় দম বন্ধ হয়ে যাওয়ার মতো অবস্থা হয়েছে মানুষের। দিল্লি থেকে ২১০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত উত্তর প্রদেশের আগ্রায়, মুঘল আমলের স্মৃতিস্তম্ভ তাজমহলের মূল ফটকে দুটি ভ্রাম্যমাণ বায়ু পরিশোধক যন্ত্র বসানো হয়েছে এজন্যে। পর্যটকদের একটু স্বস্তি দিতেই আগ্রা জেলা প্রশাসনের এই উদ্যোগ।

এ পদক্ষেপ প্রসঙ্গে আগ্রা মিউনিসিপ্যাল করপোরেশনের নির্বাহী প্রকৌশলী আরকে রথি জানান, তাজমহলে প্রতিদিন বিপুলসংখ্যক পর্যটক আসেন। তারা যেন স্বস্তিতে বেড়াতে পারেন সেজন্য দুটি বায়ু পরিশোধক যন্ত্রের মাধ্যমে পরিবেশ অনুকূলে রাখার চেষ্টা করা হচ্ছে। এগুলোর ব্যবস্থাপনায় আছে বেসরকারি সংস্থা।

মাস্ক পরিহিত পর্যটক

উত্তরপ্রদেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের মুখপাত্র ভুবন প্রকাশ যাদব জানান, ১০ দিনের জন্য পরীক্ষামূলকভাবে যন্ত্র দুটি কাজে লাগানো হচ্ছে। তবে এগুলো আরও কিছুদিন রাখার ইচ্ছে আছে আগ্রা কর্তৃপক্ষের। তিনি উল্লেখ করেন, প্রতিটি যন্ত্র আট ঘণ্টায় ৫ কোটি ৩০ লাখ ঘনফুট (১৫ লাখ ঘনমিটার) বায়ু শোধন করতে সক্ষম।

ভারতের সেন্টার ফর সায়েন্স এন্ড এনভায়রনমেন্টের (সিএসই) বায়ু দূষণ ও পরিচ্ছন্ন বাহন কর্মসূচীর মহাপরিচারক অনুমিতা রয়চৌধুরী জানান, দিল্লির স্থানীয় বিভিন্ন অব্যবস্থাপনার ফলেই দূষিত হয়েছে ৬৭ শতাংশ বায়ু। এছাড়াও ১,২৪৫ মেগাওয়াট বিদ্যুত উৎপাদন করা বিভিন্ন পাওয়ার প্লান্ট, যানবাহনের কালো ধোঁয়া, ফার্নেস তেল, কয়লা ও বিভিন্ন দূষিত জ্বালানি ব্যবহারের কারনে দূষিত হচ্ছে বায়ু প্রচন্ডভাবে।

তাজমহল

এছাড়াও দেশটির বায়ু ও যমুনা নদী দূষণের কারণে ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকাভুক্ত তাজমহল ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে আদালত মন্তব্য করেন গত বছর। এ কারণে পর্যটকসংখ্যা নিয়ন্ত্রণে রাখতে সময়সীমা বেঁধে দেওয়ার পাশাপাশি টিকিটের মূল্যও বৃদ্ধি করা হয়েছে তাজমহলের।

মন্তব্য করুনঃ-

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে