থাই এয়ারওয়েজে দূর্দিন, চেয়ারম্যানের পদত্যাগ

গত শুক্রবার পদত্যাগ করেছেন থাই এয়ারওয়েজের দায়িত্বে থাকা চেয়ারম্যান ইকনিতি নিতিথানপ্রপাস। ধারনা করা যাচ্ছে যে বিমানসংস্থাটি বিভিন্নরকমের আর্থিক সমস্যার সম্মুখীন থাকার কারনে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

0
61

থাইল্যান্ডের রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমানসংস্থা থাই এয়ারওয়েজ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে যে কোম্পানির চেয়ারম্যান ইকনিতি নিতিথানপ্রপাস পদত্যাগ করেছেন গত শুক্রবার (১লা নভেম্বর)। ধারনা করা যাচ্ছে যে বিমানসংস্থাটি বিভিন্নরকমের আর্থিক সমস্যার সম্মুখীন থাকার কারনেই এমন সিদ্ধান্ত গ্রহন করেছেন তিনি।

বর্তমানে চেয়ারম্যান পদে দায়িত্বপ্রাপ্ত হিসেবে আছেন সংস্থাটির ভাইস-চেয়ারম্যান এয়ার চীফ মার্শাল সায়্যাপ্রুক ডিডাসারিন। সম্প্রতি বিমানসংস্থাটির তিনজন কার্যনির্বাহী পরিচালকের পদত্যাগের পর চেয়ারম্যান ইকনিতি নিতিথানপ্রপাসেরও পদত্যাগ সম্পর্কে থাই এয়ারওয়েজ বিস্তারিত কিছু জানায়নি।

সাম্প্রতিক সময়ে সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন এয়ারওয়েজটির প্রেসিডেন্ট সুমেথ দামরংচাইথম। তিনি বলেছিলেন, কোম্পানি নানা সংকটের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে। কর্মকর্তা-কর্মচারীরা যদি পূর্নবাসন পরিকল্পনায় যথাযথ সহযোগীতা না পাওয়া গেলে কোম্পানি বন্ধ হয়েও যেতে পারে।

১৯৮৮ সালে যাত্রা শুরু করা থাই এয়ারওয়েজের তথ্য মতে, তারা গত এপ্রিল-জুন মাসে প্রায় ২২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। এই ক্ষতির কারন হিসেবে বলা হয়েছে যে থাইল্যান্ড ট্যুরিজম ও আন্তর্জাতিক বিমানশিল্পের বাজারে চলতে থাকা মন্দার কারনে আয় কমেছে শতকরা ১০ শতাংশ। আর যাত্রীর সংখ্যাও কমে এসেছে ৫ শতাংশেরও বেশি।

বর্তমানে চলতে থাকা আর্থিক সংকট কাটিয়ে উঠবার জন্য তাদের বহরে থাকা অতিরিক্ত বিমান বিক্রি করে দিচ্ছে এয়ারওয়েজটি।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে