কম খরচে বিদেশ ঘুরি

দেশে অনেক জায়গা ঘোরাঘুরি শেষে এবার দেশের বাইরে থেকে ঘুরে আসার কথা ভাবছেন, কিন্তু খরচে পোষাবে না ভেবে মনের কথা মনেই চেপে রেখেছেন? বাংলাদেশীদের জন্য সহজে ও কম খরচে ঘুরতে যাওয়ার উপযোগী ৫ টি বিদেশী পর্যটনস্থান নিয়ে পর্যটনিয়ার এবারের আয়োজন-

0
94

আকর্ষনীয় ও জনপ্রিয় হওয়ার পাশাপাশি কোন স্থানে যদি ভ্রমণ করা যায় স্বল্প খরচেই তাহলেতো সোনায় সোহাগা! দেশের বাইরের এমনই ৫ টি স্থানে ভ্রমণের খরচা জেনে নিন চট করে!

ভূটান
বাংলাদেশ থেকে মাত্র ৪২৫ কি.মি. দূরে অবস্থিত ভূটান। দেশটিতে অন-অ্যারাইভাল ভিসা আছে বাংলাদেশীদের জন্য। ঢাকা থেকে বিমানে বা বাসে দু’ভাবেই যাওয়া যায় ভূটানে। ভুটানের এয়ারপোর্ট দেশটির ছোট্ট সুন্দর শহর পারোতে অবস্থিত। বাংলাদেশের সাথে ভুটানের আকাশ পথে সরাসরি যোগাযোগের জন্য একটাই বিমান ড্রুক এয়ার। যাওয়া-আসায় খরচ মোটামুটি ২১-২২ হাজার টাকা। আর বাসে পড়বে ২ থেকে ৩ হাজার টাকা। ভূটানে হোটেল খরচ অনেক ব্যয়বহুল হলেও বাংলাদেশিদের জন্য একেক রাতের জন্য আড়াই হাজারের মাধ্যেই পাওয়া যায়। ৪-৫ দিনের ভূটান ট্যুরে থিম্পু, পারো ও পুনাথা ঘুরে আসতে জনপ্রতি খরচ পড়বে ২৫ থেকে ২৮ হাজার করে। আর দলগতভাবে বাসে যাতায়াত করলে ১৬ থেকে ১৮ হাজারের মাঝেই ঘুরে আসতে পারবেন পাহাড়চূড়ার দেশ ভূটান থেকে।

ভূটান।

ইন্ডিয়া
সবচাইতে কাছের প্রতিবেশি রাষ্ট্র ভারতে আছে আকর্ষনীয় অসংখ্য পর্যটনকেন্দ্র। কোথায় যেতে চান, তার ওপরে ভিত্তি করে খরচ কত পড়বে। ঢাকা থেকে ১,৪২৩ কি.মি. দূরে অবস্থিত দিল্লিতে যাওয়া-আসার বিমান খরচ পড়ে ২২ হাজার। দিল্লিতে ১০০০-১৫০০ টাকার মাঝেই পাওয়া যায় মোটামুটি মানের হোটেল। তাজমহল, আগ্রা, উদয়পুর, যোধপুর, লালকেল্লা, কুতুব মিনার, জামা মসজিদ ইত্যাদি স্থান ঘুরে ৬-৭দিনের ভ্রমণে মোট লাগবে ৩০-৩৫ হাজার টাকা করে। তবে ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা খরচ করে ঘুরে আসা যায় দার্জিলিং থেকেও।

দিল্লী, ভারত।

থাইল্যান্ড
বিমানে থাইল্যান্ডের ব্যাংককে যাওয়া-আসার খরচ ১৪/১৫ হাজার টাকা থেকে শুরু। কম খরচে ঘুরবার জন্য থাইল্যান্ড অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি জায়গা। মোটামুটি মানের হোটেলে ৮০০ থেকে ১০০০ বাথেই (থাইল্যান্ডের মুদ্রা) পাওয়া যায় ভালো রুম। মাত্র ৮০ থেকে ১০০ বাথেই খাওয়া সম্ভব যেকোন ভালো রেস্টুরেন্টে। মোটামুটি ২০-২৫ হাজার টাকা খরচ করলেও ঘুরে আসা সম্ভব থাইল্যান্ড থেকে।

থাইল্যান্ড।

নেপাল
বাংলাদেশীদের জন্য নেপালের ৩০দিনের ট্যুরিস্ট ভিসা অন-অ্যারাইভাল সুবিধা রয়েছে। বিমান ও বাস সার্ভিস, দু’টো মাধ্যমেই যাওয়া যায় ঢাকা থেকে নেপালের কাঠমুন্ডুতে। ঢাকা থেকে কাঠমুন্ডু যাওয়া-আসা বিমান ভাড়া ১৭-১৯ হাজার। হাজার-বারোশোর মাঝেই পাওয়া যায় হোটেল রুম। কাঠমান্ডু, পোখারা মিলিয়ে ৬-৭ দিনের নেপাল ভ্রমণে মোট ব্যয় হতে পারে ৩০ থেকে ৩৫ হাজার টাকা। 

নেপাল।

ইন্দোনেশিয়া
বাংলাদেশীদের জন্য ভিসা-ফ্রি অফার দেয় ইন্দোনেশিয়া। ঢাকা থেকে জাকার্তায় বিমানে যাওয়া-আসার খরচ পড়ে ২৬ হাজার। বাংলাদেশি টাকায় মাত্র ২ হাজার করেই পাওয়া যায় হোটেল রুম। বালি, রাজা আমপাট, টোরাজাল্যান্ড, লম্বক, ফ্লোরেস দ্বীপ ইত্যাদি ঘুরে, ৫-৬ দিনের ইন্দোনেশিয়া ভ্রমণের জন্য জনপ্রতি খরচ পড়বে ৩৫-৪০ হাজার টাকা।

ইন্দোনেশিয়া।

মন্তব্য করুনঃ-

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে